আবারও বিকল্প রিং বাঁধ ভেঙ্গে লোকালয়ে জোয়ারের পনি !

7

মাসুম, প্রতাপনগর,আশাশুনি,প্রতিনিধিঃ আবারও প্রতাপনগরের বিকল্প রিং বাঁধ ভেঙ্গে লোকালয়ে খোলপেটুয়া নদীর জোয়ারের পানি ডুকেছে ! ১২ ঘন্টার ব্যবধানে স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে ভাটার সময় বাঁধ বেঁধে জোয়ারের পানি আটকালো শতশত ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।

বিকল্প রিং বাঁধ টিকিয়ে রাখতে জেলা প্রশাসকদের হস্তক্ষেপ কামনা বানভাসি অসহায় মানুষের।বৃহস্পতিবার রাতের জোয়ারে প্রতাপনগর ফকির বাড়ির সামনের বিকল্প রিং বাঁধ, প্রতাপনগর এ বি এস ফাজিল মাদ্রাসার গেট থেকে রিং বাঁধ ভেঙ্গে আবারও নতুন করে খোলপেটুয়া নদীর জোয়ারের পানি প্রবেশ করেছে।

এছাড়া রাতের জোয়ারের পানির উচ্চতা এতোই বেশি ছিল যে বিকল্প রিং বাঁধটির অধিকাংশ স্থান দিয়ে ছাপিয়ে ছাপিয়ে নদীর জোয়ারের পানি ভিতরে প্রবেশ করে। প্রতি গোন মুখের সময় বানভাসি মানুষের মাঝে নতুন আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। এবং রিং বাঁধের ভিতরে থাকা মানুষের মধ্যে সর্বক্ষন চরম হতাশা বিরাজ করে।

গতকাল সকালে বানভাসি ভুক্তভোগী এলাকাবাসীর উদ্যোগে ভেঙ্গে যাওয়া বিকল্প রিং নির্মাণের মাধ্যমে খোলপেটুয়া নদীর জোয়ারের পানি আটকাতে সক্ষম হয়েছে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী। ফকির বাড়ির ভাঙ্গন রিং বাঁধ নির্মাণ কাজের নেতৃত্ব দেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ ফকির, ইউনিয়ন আ’লীগ সিনিয়র সহ-সভাপতি কামরুজ্জামান কাজল, আলহাজ্ব মোশাররফ সানা, মাওঃ রিয়াছাত আলী সরদার। প্রতাপনগর এ বি এস ফাজিল মাদ্রাসার গেটের ভাঙ্গন পয়েন্ট আটকাতে নেতৃত্ব দেন অত্র মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওঃ অহিদুজ্জামান, সাবেক ইউনিয়ন ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাহমুদুল হাসান মিলন, প্রমুখ। উল্লেখ্য গত ২৬ মে ঘুর্নিঝড় ইয়াস-যশে বন্যতলার ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে খোলপেটুয়া নদীর জোয়ার ভাটায় বিস্তীর্ণ প্রতাপনগর ইউনিয়ন প্লাবিত।

এই অঞ্চলে চলছে নিয়মিত নদীর জোয়ার ভাটা। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবু দাউদ ঢালীর নেতৃত্বে এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতায় প্রায় পাঁচ কিলোমিটার বিকল্প রিং বাঁধের মাধ্যমে প্লাবিত এলাকার সত্তর ভাগ এলাকা জোয়ার ভাটা মুক্ত করা হয়েছে।