প্রতাপনগরে সাঁতরিয়ে ইমামের দায়িত্বরত হাফেজের পাশে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন

0

মাসুম, প্রতাপনগর,আশাশুনি,প্রতিনিধি : প্রতাপনগরে সাঁতরিয়ে ইমাম মুয়াজ্জিনের দায়িত্ব পালন করা হাফেজ মইনূর ইসলামের পাশে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। গত সোমবার প্লাবিত প্রতাপনগরের হাওলাদার বাড়ি জামে মসজিদের ইমামের সাঁতরিয়ে আযান নামাজ আদায় করতে যাওয়া আশার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ায় বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেই ইমামের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

২২ সেপ্টেম্বর বেলা সাড়ে এগারোটায় আনুলিয়া ব্লাড ব্যাংকের সভাপতি মাসুম বিল্লাহর পরামর্শ ক্রমে সাধারণ সম্পাদক লিটন হোসেন নেতৃত্বে ব্লাড ব্যাংকের অন্যতম স্বেচ্ছাসেবী রাসেল হোসেন নাহিদ, মাওঃ ফারুক হোসেন, সোহাগ হোসেন,শাহিন, নাইম হোসেনের উপস্থিতিতে সাঁতরিয়ে ইমামের দায়িত্বরত ইমাম মইনূর ইসলাম কে এক সপ্তাহের খাদ্য ত্রাণ সামগ্রী দেওয়া হয়েছে।

উক্ত ইমাম হাফেজ মইনূর ইসলাম কে ডু সামথিং স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের পক্ষ থেকে মসজিদে আজান, ইমামতি ও মুসল্লিদের পারাপার তথা তার ইমামতির দায়িত্ব পালনের সুবিধার্থে একটি নৌকা দেওয়া হয়েছে এবং হাফেজ মইনূর ইসলামের বসবাসের ঘর তথা সাবলম্বী করার ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে।

উল্লেখ্য অত্র প্রতাপনগর ইউনিয়ন টি বিগত বছরের ২০ মে মহা প্রলয়ঙ্কারী জ্বলোচ্ছাস ঘুর্নিঝড় আম্ফানের পর প্রায় দশ মাস কপোতাক্ষ ও খোলপেটুয়া নদীর লবণাক্ত বিষাক্ত জ্বলের জোয়ার ভাটায় নিমজ্জিত ছিল। তাঁর ক্ষত চিহ্ন কেটে না উঠতেই ২ মাস ১৮ দিন পর ২৬ মে ঘুর্নিঝড় ইয়াস-যস এ আবারও বেড়ীবাঁধ ভাঙ্গনে খোলপেটুয়া নদীর জোয়ার ভাটায় প্লাবিত হয়েছে।

এলাকাবাসীর স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে বিকল্প রিং বাঁধের মাধ্যমে তিন গ্রামের প্রায় চার পাঁচ হাজার মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় রেখে বাকি সত্তর ভাগ এলাকা জোয়ার ভাটা মুক্ত করা হয়েছিল। নিয়তির নির্মম পরিহাস গত ১০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকল্প রিং বাঁধ ভেঙ্গে আবারও নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। চারিদিকে শুধু ই পানি আর পানি অথৈ পানিতে প্লাবিত প্রতাপনগরের জনপদ।