প্রতাপনগর পুনঃ উদ্ধারে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার লড়াইয়ে বিকল্প রিং বাঁধের কাজ এগিয়ে চলছে‌

5

মাসুম, প্রতাপনগর,আশাশুনি,প্রতিনিধিঃ প্রতাপনগর পুনঃ উদ্ধারে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার তাগিদে, বেঁচে থাকার লড়াইয়ে আবারও বিকল্প রিং বাঁধের কাজ এগিয়ে চলছে।‌

বন্যতলা, কুড়িকাহুনিয়া, প্রতাপনগর মাদার বাড়িয়া গ্রামের প্রায় চার পাঁচ হাজার মানুষকে খোলপেটুয়া নদীর জোয়ার ভাটায় নিমজ্জিত রেখে প্রতাপনগর ইউনিয়নের মানচিত্র শিমা রেখা তথা অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার তাগিদে বিকল্প রিং বাঁধ নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে এলাকাবাসীর উদ্যোগে। প্রতাপনগর কর্মকার বাড়ী থেকে প্রতাপনগর পশ্চিম মাথা বিট হাউস পর্যন্ত প্রায় ডেড় কিলোমিটার রাস্তা বিকল্প রিং বাঁধের মাধ্যমে প্লাবিত এলাকার সত্তর ভাগ এলাকা জোয়ার ভাটা মুক্ত করতে বিকল্প রিং বাঁধের কাজ গত প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে নির্মাণ কাজ করে চলেছে।

রাস্তাটি ড্রেজার মেশিন দিয়ে জিয়ো ব্যাগে বালু ভরাটের মাধ্যমে ও সাধারণ বস্তায় মাটি বালু ভর্তি করে এবং ঝুড়ি কোদালে শ্রোমিক মুজুরীর মাধ্যমে বিকল্প রিং বাঁধের কাজ এগিয়ে চলেছে।

প্লাবিত উপকূলীয় বানভাসি ভুক্তভোগী অসহায় এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতায় বিকল্প রিং বাঁধের কাজ এগিয়ে চলেছে। স্থানীয় সর্ব ধর্ম বর্ণ শ্রেণী পেশার শতশত মানুষের স্বেচ্ছাশ্রমে ও প্রতাপনগর পুনঃ উদ্ধার কমিটির আহবায়ক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবু দাউদ ঢালীর নেতৃত্বে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজ ফকির, সাবেক এলজিডি কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান গাজী, ইউনিয়ন আ’লীগ সিনিয়র সহ-সভাপতি কামরুজ্জামান কাজল, ইউনিয়ন কৃষক লীগের আহ্বায়ক ডাঃ আব্দুল গনি, ইউনিয়ন কৃষক লীগের সদস্য সচিব হারুন উর রশীদ, প্রভাষক মাওঃ আব্দুর রউফ, মাওঃ আব্দুস সবুর, মাওঃ নুরুল ইসলাম, মাওঃ রিয়াছাত আলী, আ’লীগ নেতা বাবু অমিও কুমার সোম, সাবেক ইউনিয়ন ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাহমুদুল হাসান মিলন সহ এলাকার সচেতন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের কঠোর পদক্ষেপে টিকে থাকার লড়াইয়ে আবারও নতুন করে বিকল্প রিং বাঁধের কাজ শুরু হয়ে সত্তুর ভাগ কাজ এগিয়ে গেছে। আগামী তিন চার দিনের মধ্যে বিকল্প এই রিং বাঁধটি র নির্মাণ কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছেন বিকল্প রিং বাঁধ নির্মাণ কমিটি।

উল্লেখ্য অত্র প্রতাপনগর ইউনিয়ন টি বিগত ২০ মে ঘুর্নিঝড় আম্ফানের পর থেকে দীর্ঘ প্রায় দুই বছর সময় ধরে কপোতাক্ষ ও খোলপেটুয়া নদীর জোয়ার ভাটায় নিমজ্জিত হয়ে আজও বন্যতলার ভাঙ্গন পয়েন্ট দিয়ে খোলপেটুয়া নদীর জোয়ার ভাটায় প্রতিদিন দুই বার প্লাবিত হচ্ছে উপকূলীয় প্রতাপনগর অঞ্চলের এলাকাবাসী।

এহেন পরিস্থিতিতে প্লাবিত বানভাসি মানুষের দুঃখ দুর্ভোগ দুর্দশা লাঘবে জরুরী ভিত্তিতে বন্যতলার ভাঙ্গন পয়েন্ট আটকানোর দাবি ভুক্তভোগী সচেতন এলাকাবাসীর।