বাংলাদেশে প্রথম ভাসমান মসজিদ উদ্বোধন প্রতাপনগরে

0

মাসুম, প্রতাপনগর,আশাশুনি,প্রতিনিধি : মানবতার সেবায় বাংলাদেশে প্রথম ভাসমান মসজিদ মসজিদে নূহ (আঃ) এর শুভ উদ্বোধন প্লাবিত প্রতাপনগরে।

গতকাল প্রতাপনগর হাওলাদার বাড়ি জামে মসজিদের স্থলা ভিত্তিক মসজিদ হিসাবে ভাসমান মসজিদটির শুভ উদ্বোধন করা হয়। মঙ্গলবার জোহরের নামাজের মধ্যে দিয়ে ভাসমান মসজিদটির শুভ উদ্বোধন করেন আলহাজ্ব সামসুল হক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী নাছির উদ্দিন। সাম্প্রতিক প্রতাপনগর হাওলাদার বাড়ি জামে মসজিদটি বেড়িবাঁধ ভাঙ্গনে খোলপেটুয়া নদীর জোয়ার ভাটা চলমানে মসজিদ টি বিধ্বস্ত প্রায়।

প্লাবিত মসজিদে নামাজ কালাম আদায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছিলো মুসুল্লিদের। স্থানীয় সেই মুসল্লিদের দুর্ভোগ দুর্দশা লাঘবে তথা স্থানীয় মুসুল্লিদের নামাজ কালাম ইবাদাত বন্দীগি করার জন্য প্লাবিত মসজিদের বিপরীতে আলহাজ্ব সামসুল হক ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে প্রায় পাঁচ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ভাসমান মসজিদ টি শুভ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে প্লাবিত সেই মসজিদ কমিটির সভাপতি ও ইমাম হাফেজ মইনূর ইসলামের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

মসজিদ টি হস্তান্তর কালে আগত মুসুল্লি বৃন্দ খুবই উৎফুল্ল ও আনন্দ প্রকাশ করেন। মসজিদে রয়েছে আযান দেওয়ার জন্য মাইক সাউন্ড সিস্টেম। মসজিদে ৮ টি কাতারে ৫৫ থেকে ৬০ জন মুসুল্লি এক জামায়াতে নামাজ আদায় করতে পারবেন।

ভাসমান মসজিদের নৌকাটির দৈর্ঘ্য ৫০ ফুট ও ১৬ ফুট প্রস্থ। মসজিদ টিতে রয়েছে পানির ট্যাংক, ট্যাব সিস্টেম ওযু করার সুবিধা। রয়েছে স্যানিটেশন ব্যবস্থা। সোলার লাইটের আলোর ব্যবস্থা রয়েছে মসজিদটিতে এবং পবিত্র কোরআন শরীফ তেলাওয়াতের জন্য বুক শেলফে রয়েছে কোরআন শরীফ।

এছাড়া ভাসমান মসজিদে মুসল্লিদের যাতায়াতের জন্য থাকছে একটা ছোট নৌকা। ভাসমান মসজিদটি যাহাতে স্থির থাকে সে জন্য নৌকার দুই ধারে ২৫০ লিটারের ৪ টা করে ৮ টি ড্রাম বাঁধানো হয়েছে।

ভাসমান মসজিদ টি উদ্বোধন কালে আলহাজ্ব সামসুল হক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার নাছির উদ্দিন বলেন মসজিদ টি আরো সম্প্রসারন করার পরিকল্পনা রয়েছে। উল্লেখ্য উপকূলীয় প্রতাপনগর ইউনিয়ন দীর্ঘ প্রায় দুই বছর ধরে খোঁলপেটুয়া নদীর জোয়ার ভাটায় প্লাবিত অবস্থায় রয়েছে।