গঠনতন্ত্রের তোয়াক্কা নেই, যথেচ্ছ বহিষ্কার-পদায়ন আ.লীগে

0
5

ন্যাশনাল ডেস্ক: সংগঠন পরিচালনায় গঠনতন্ত্রের তোয়াক্কা করেন না আওয়ামী লীগের বিভিন্ন ইউনিটের নেতারা। মন্ত্রী-এমপি থেকে শুরু করে জেলা-উপজেলা সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, বেশিরভাগেরই অনীহা গঠনতন্ত্রের বিধি প্রতিপালনে। নিজের কর্তৃত্ব রক্ষায় স্বেচ্ছাচারিতা দেখানোর অভিযোগ মিলছে অনেকের বিরুদ্ধে। কেন্দ্রীয় নির্দেশনারও পরোয়া করেন না তারা। বিশেষ করে বহিষ্কারে গঠতন্ত্রের বিধি মানেন না কেউ, জানেনও না অনেকে।সম্প্রতি বেশ কয়েকটি জেলা শাখার কার্যক্রম ও নেতাদের গতিবিধি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, নিজের স্বার্থের বাইরে কারোরই ধার ধারেন না জেলা-উপজেলা পর্যায়ের নেতারা। নিজের কর্তৃত্ব রক্ষায় সবই করতে পারেন তারা। এক্ষেত্রে গঠনতন্ত্র বা কোনো নির্দেশনা বাধা হয়ে দাঁড়ালে সেটিরও তোয়াক্কা করেন না। নিজের শাখা ও অধীনস্থ শাখায় পদায়ন ও বহিষ্কার, শাখা কমিটি গঠন ও বিলুপ্তিতে তারা কর্তৃত্ব রক্ষার বিষয়টিই প্রাধান্য দেন। এমনকি নিজের গ্রুপিংয়ের প্রয়োজনে সহযোগী ও অঙ্গ সংগঠনেরও কমিটি গঠন ও কমিটি বিলুপ্ত করে ফেলেন এমপি বা আওয়ামী লীগ নেতা। এ বিষয়ে বারবার কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ থেকে নোটিশ দেয়া হলেও মিলছে না ফল।আমাদের বহিষ্কার সঠিক না হলে কেন্দ্র জানাতো। এক মাস হয়ে গেল, কেন্দ্র তো কিছু জানায়নি। তার মানে আমরা সঠিক বর্তমানে ‘টক অব দ্য কান্ট্রি’ নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাম্প্রতিক কার্যক্রম। বসুরহাট পৌরসভার মেয়র ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবদুল কাদের মির্জাকে দল থেকে অব্যাহতি দেয়া নিয়ে জেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দুই মেরুতে অবস্থান করছেন। এলাকা থেকে জেলা সভাপতি খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম বলেন, ‘এ বিষয়টি আওয়ামী লীগ সভাপতির টেবিলে। তিনি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন।’ আর ঢাকা থেকে ফেসবুক লাইভে জেলার সাধারণ সম্পাদক সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী বলেন, ‘তাকে (কাদের মির্জা) অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।’এছাড়া সারাদেশে দল থেকে বহিষ্কারের বহু ঘটনা ঘটেছে। বিশেষ করে গত উপজেলা, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভা নির্বাচনগুলোর সময় পাইকারি হারে বহিষ্কার করা হয়েছে। কিন্তু এক্ষেত্রে মানা হয়নি গঠনতন্ত্র।গত ২৩ জানুয়ারি ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মশিউর রহমান জোয়ার্দ্দারসহ তিনজনকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। বহিষ্কৃত অন্য দুই নেতা হলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম এবং পৌর মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা শাহিনুর রহমান রিন্টু।২৮ জানুয়ারি মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল রানা মিঠুকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন আহম্মেদ মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক কাজল কৃষ্ণ দে স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ বহিষ্কারাদেশ জানানো হয়। বিস্তারিত আসছে..

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে