খুলনায় বিএনপির ২১ নেতাকর্মী গ্রেফতার, নেতৃবৃন্দের নিন্দা

6

খুলনা প্রতিনিধিঃ আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি শনিবার খুলনায় বিএনপির মহাসমাবেশ বানচাল করার লক্ষে পুলিশ নগরীতে ব্যাপক ধরপাকড় শুরু করেছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাত ৯টা পর্যন্ত বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদলসহ সহযোগী সংগঠনের ২১ জন নেতা-কর্মী কে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে দলটি।নগর বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক শামসুজ্জামান চঞ্চল জানান, গ্রেফতার নেতাকর্মীরা হলেন, সোনাডাঙ্গা থানার আব্দুল মজিদ, বাশির হোসেন, শাহাদাৎ হোসেন বাবলু, মো. সুমন, শাহাজাহান শেখ ও ইউনুচ মুন্সি, খালিশপুর থানার মিজানুর রহমান খোকন, দৌলতপুর থানার হায়দার আলী লাবু, খানজাহান আলী থানার শাহরিয়ার মাসুম ও শেখ জিয়াউর রহমান, ১৬নং ওয়ার্ডের হারুন মোল্যা, ১৮নং ওয়ার্ডের মোল্যা জাকির হোসেন ও গফ্ফার বিশ্বাস, ২৭নং ওয়ার্ডের সিরাজুল ইসলাম, ২৮নং ওয়ার্ডের মাসুদ খান বাদল, ২৯নং ওয়ার্ডের কবির বিশ্বাস, ৩১নং ওয়ার্ডের কামরুজ্জামান টুকু, বাবুল হোসেন ও আসাদুজ্জামান, ছাত্রদলের শামীম আশরাফ, যুবদলের আলাউদ্দিন।এদিকে বিএনপির সমাবেশ বানচাল করার লক্ষে ব্যাপক ধরপাকড় ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা মহানগর বিএনপি। বুধবার রাতে এক বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, পুলিশের এ ধরনের ধরপাকড়ে মোটেই আতঙ্কগ্রস্থ নয় বিএনপি; তবে নেতাকর্মীদের পরিবারের নারী সদস্যদের সাথে অশোভনীয় আচারণ মোটেই কাম্য নয়। শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করার লক্ষ্যে যখন আমরা কাজ করছি তখনই পুলিশি অভিযান, গ্রেফতার প্রমাণ করে সরকার কতটা দেউলিয়া হয়ে গেছে। বন্দুকের নলের জোরে চিরদিন কেউ ক্ষমতায় থাকতে পারেনি; শেখ হাসিনাও পারবে না। অবিলম্বে বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদলসহ সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের মুক্তি ও ধরপাকড় বন্ধের আহবান জানিয়েছেন নেতৃবৃন্দ।বিবৃতিদাতা নেতৃবৃন্দ হলেন, খুলনা মহানগর বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, এড. বজলুর রহমান, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশাররফ হোসেন, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, জলিল খান কালাম, এড. এস আর ফারুক, সিরাজুল ইসলাম, এড. ফজলে হালিম লিটন, স ম আব্দুর রহমান, শেখ ইকবাল হোসেন, শেখ জাহিদুল ইসলাম, অধ্যক্ষ তারিকু বিস্তারিত আসছে….