কবরস্থানে নায়ক শাহীনের লাশ নিয়ে অসহায় ছেলের অপেক্ষা

3

বাংলা সিনেমার এক সময়ের ব্যস্ত চিত্রনায়ক শাহীন আলম না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন। সোমবার (৮ মার্চ) রাত ১০টা ৫ মিনিটে মারা যান তিনি। শাহীন আলমের লাশ দাফন নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন তার ছেলে। অসহায়ের মতো কবরস্থানের সামনে শাহীন আলমের মরহেদ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন তার ছেলে ফাহিম আলম। মঙ্গলবার সকালে (৯ মার্চ) সময়নিউজকে ফাহিম বলেন, আমার বাবার লাশ বনানী কবরস্থানে দাফনের জন্য নিয়ে এসেছি। এখানে আমার চাচার কবরের স্থানে বাবার মরদেহ দাফনের কথা ছিল। কিন্তু কবর কমিটি লোকেরা তাতে বাধা দেয়। তাদের বক্তব্য, মেয়রের অনুমতি নিয়ে সেখানে দাফন করতে হবে। এ বিষয়ে দাফনে অংশ নেয়া মজার টিভির কন্টেন্ট ডিরেক্টর মাহসান স্বপ্ন সময়নিউজকে বলেন, আমি শাহীন আলমকে নিয়ে কয়েকবার তার সাক্ষাৎকার নিয়েছি। সেই সুবাদে তার সঙ্গে আমার সম্পর্ক খুব ভাল। তার জন্য দাফনে এসেছি। কিন্তু এসে দেখছি এখানে একজনের কবরের ওপর আরেকজনের দাফন করতে চাইলে একটি নির্দিষ্ট সময় পার করতে হয়। সেই সময়ও পার হয়েছে কিন্তু তারা দাফন করতে দিচ্ছে না। তিনি বলেন, এ বিষয়ে শাহীন আলমের ছেলে শিল্পী সমিতির একাধিক নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তারা কোনো সহযোগিতা করেননি।চিত্রনায়ক ওমর সানী, মিশা সওদাগর ও জায়েদের নাম উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তারা কোনো সহযোগিতা করেননি। এতে শাহীন আলমের ছেলে চরম অসহায়ের মতো কবরস্থানের পাশে সময় অতিবাহিত করছেন।যদিও এর আগে নিজেদের ফেসবুকে ছবি শেয়ার করে ওমর সানী, জায়েদ খান ও মিশা সওদাগর আবেগঘন স্ট্যাটান দেন।সোমবার (৮ মার্চ) রাত ১০টা ৫ মিনিটে রাজধানীর আজগর আলী হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় মারা যান তিনি।

ঢাকায় বেড়ে ওঠা শাহীন আলম শুরুতে মঞ্চে অভিনয় করতেন। ‘নতুন মুখের সন্ধানে’ প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ১৯৮৬ সালে সিনেমায় পা রাখেন তিনি। ১৯৯১ সালে শাহীন অভিনীত ‘মায়ের কান্না’ সিনেমাটি মুক্তির পর নজরে আসেন তিনি। একসঙ্গে সাতটি সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হন শাহীন। এরপর দেড় শতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন এ অভিনেতা।

শাহীন আলম অভিনীত সিনেমাগুলোর মধ্যে ‘ঘাটের মাঝি’, ‘এক পলকে’, ‘প্রেম দিওয়ানা’, ‘চাঁদাবাজ’, ‘প্রেম প্রতিশোধ’, ‘টাইগার’, ‘রাগ-অনুরাগ’, ‘দাগি সন্তান’, ‘বাঘা-বাঘিনী’, ‘স্বপ্নের নায়ক’, ‘আরিফ লায়লা’, ‘আঞ্জুমান’, ‘অজানা শত্রু’, ‘গরিবের সংসার’, ‘দেশদ্রোহী’, ‘আমার মা’, ‘পাগলা বাবুল’, ‘তেজী’, ‘শক্তির লড়াই’, ‘দলপতি’, ‘পাপী সন্তান’, ‘ঢাকাইয়া মাস্তান’, ‘বিগবস’, ‘বাবা’, ‘বাঘের বাচ্চা’, ‘বিদ্রোহী সালাউদ্দিন’, ‘তেজী পুরুষ’ ইত্যাদি অন্যতম।