চিকিৎসায় টাকা শেষ, ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে অসহায় ভারত ফেরতরা!

4

যশোর প্রতিনিধিঃ বেনাপোলে শুরু হয়েছে ভারত ফেরত যাত্রীদের নিজ খরচে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন কার্যক্রম। বৃহস্পতিবার (০১ এপ্রিল) বিকেলে ভারত থেকে ফেরার সময় সঙ্গে পিসিআর ভিত্তিক করোনা নেগেটিভ সনদ না থাকায় ১৫ বাংলাদেশি নারী, পুরুষ ও শিশুকে পুলিশি নিরাপত্তায় বেনাপোল পৌর বিয়ে বাড়িতে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠিয়েছে ইমিগ্রেশন স্বাস্থ্য বিভাগ। চিকিৎসার কাজে বাংলাদেশিরা পরিবার নিয়ে ভারতে গিয়েছিলেন। ফেরত আসা বাংলাদেশিদের মধ্যে ৪ নারী, ৮ পুরুষ ও ৩ শিশু রয়েছে। এদিকে, ভারত থেকে ফেরার পর হাতে অতিরিক্ত খরচের টাকা না থাকায় কিভাবে ১৪ দিন নিজ খরচে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকবে, সেটা নিয়ে বড় দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তারা। একেবারে অসহায় হয়ে পড়েছে এসব পরিবার। ভারত ফেরত যাত্রী আরিজিত চৌধুরী বলেন, তিনি পরিবার নিয়ে চিকিৎসার জন্য ভারতে গিয়েছিলেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে বেনাপোল ইমিগ্রেশনে ফিরে জানতে পারেন পিসিআর ভিত্তিক করোনা সনদ লাগবে। ভারতের সরকারি হাসপাতাল থেকে পরীক্ষা করোনা নেগেটিভ সনদ ইমিগ্রেশন ডাক্তার মানেননি। ফলাও করে সরকার এটা প্রচার না করায় এখন অসুস্থ স্বজনদের নিয়ে বৈরী পরিবেশে ১৪ দিন থাকতে হবে। ভারত ফেরত অপর যাত্রী বলেন, দুই বার করোনা রিপোর্ট আর ডাক্তার দেখাতে প্রায় সব টাকা শেষ। সাথে আছে বাড়ি ফেরার সামান্য টাকা। এখন কিভাবে ব্যক্তিগত খরচে ১৪ দিন প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকবো। বিষয়টি বিবেচনার জন্য সরকারকে অনুরোধ করেন তিনি।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন স্বাস্থ্য বিভাগের মেডিকেল অফিসার আবু তাহের জানান, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী ভারত ফেরত ১৫ যাত্রীর কাছে পিসিআর ভিত্তিক করোনা নেগেটিভ সনদ না থাকায় তাদেরকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। তবে যাদের সাথে পিসিআর ভিত্তিক নেগেটিভ সনদ থাকছে তাদেরকে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দিয়ে বাড়ি পাঠানো হচ্ছে।